স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যা বললেন
স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যা বললেন

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যা বললেন

স্মার্ট বাংলাদেশ করতে হলে সর্বপ্রথম আমাদেরকেই স্মার্ট হতে হবে। কারন আমরা স্মার্ট না হলে আমাদের দেশ কিভাবে স্মার্ট হবে। শুধুমাত্র স্মার্ট জনগনই পারে স্মার্ট বাংলাদেশ করতে। স্মার্ট বাংলাদেশ করতে এবং স্মার্ট বাংলাদেশ সম্পর্কে জেনে নেই।

স্মার্ট বাংলাদেশ ২০৪১

সম্মানিত পাঠক আজকে আমরা স্মার্ট বাংলাদেশ সম্পর্কে জানতে চাচ্ছি। তো আপনিও স্মার্ট হয়ে পড়া শুরু করুন। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে আপনাকে অবশ্যই স্মার্ট এবং স্মার্ট সমাজ তৈরি করতে হবে। স্মার্ট ও দক্ষ জনবল তৈরি করতে হবে। স্মার্ট অর্থনীতি তৈরি করতে হবে। স্মার্ট গতিপথ তৈরি করতে হবে এবং এ স্মার্ট জনবল গঠন করতে হবে। তবে আমরা স্মার্ট বাংলাদেশ করতে পারব।

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী যা বললেন

স্মার্ট বাংলাদেশ গঠন করতে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, স্মার্ট বাংলাদেশ, স্মার্ট সমাজ, স্মার্ট অর্থনীতি, স্মার্ট জনগণ, স্মার্ট পরিবার, স্মার্ট জনশক্তি, স্মার্ট দেশ এবং স্মার্ট বাংলাদেশ গঠন করতে চাই।

তিনি বলেছেন বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষকে ডিজিটাল ডিভাইস দিয়ে দক্ষ করে তোলা এবং প্রতিটি ডিজিটাল ডিভাইস সম্পর্কে ভালো ধারণা অর্জন করা। এতে দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। এত তারা চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে অবদান রাখতে পারে।

বাংলাদেশের প্রতিটি লোককে জনশক্তিতে রূপান্তর করতে হবে। প্রতিটি জনগণকে ডিজিটাল ডিভাইস সম্পর্কে এবং অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকতে হবে।

বাংলাদেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে যেমন শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অর্থনীতি এবং সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে ডিজিটাল পেইজ ব্যবহার করা শিখতে হবে। কৃষি ক্ষেত্রে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে।

স্মার্ট বাংলাদেশের মূল স্তম্ভ

স্মার্ট বাংলাদেশের মূল স্তম্ভ

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে চারটি মূল জিনিস মাথায় রাখতে হবে। স্মার্ট বাংলাদেশের মূল স্তম্ভ হচ্ছে চারটি।

১। স্মার্ট সিটিজেনঃ দেশের প্রতিটি নাগরিক প্রযুক্তি ব্যবহার করতে দক্ষতার সাথে। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার করবে। প্রতিটি ডিজিটাল ডিভাইস সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা থাকবে।

২। স্মার্ট গভারমেন্টঃ বাংলাদেশের গভমেন্ট হবে স্মার্ট। গভারমেন্টের প্রতিটি ক্ষেত্রে স্মার্টের ছোঁয়া থাকবে।

৩। স্মার্ট সোসাইটিঃ সমাজের প্রতিটি লোক অনলাইন সম্পর্কে ধারণা থাকবে। প্রতিটি মানুষ ঘরে বসেই অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবে।

৪। স্মার্ট ইকোনমিঃ দেশের অর্থনীতির প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রযুক্তি ব্যবহার থাকবে এবং ঘরে বসেই সকল ইকোনমিক রিলেটেড সুবিধা ভোগ করতে পারবে।

রোড টু স্মাট বাংলাদেশ

এখন বাংলাদেশের দিন বদলের পালা শুরু হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ এর দিকে এগোচ্ছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ হবে বিশ্বের মধ্যে একটি উন্নত দেশ। আর সেই বাংলাদেশের নাম দিয়েছে স্মার্ট বাংলাদেশ। স্মার্ট বাংলাদেশের ফলে দেশের মানুষ স্বাধীন এবং সুস্থভাবে বেঁচে থাকতে পারবে এবং জীবন যাপন করতে পারবে।

২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশে স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে পরিচিত লাভ করবে। তখন বাংলাদেশে অনলাইনে বা অফলাইনে কোন লেনদেন বা কেনাকাটা করার জন্য ক্যাশ টাকার প্রয়োজন হবে না। আর হ্যাঁ শুনতে অবাক হচ্ছেন সবকিছু হবে ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে।

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার সুবিধা

স্মার্ট বাংলাদেশ হলে বাংলাদেশের প্রতিটি ক্ষেত্রেই হবে স্বাশ্রয়ী, টেকসই, জ্ঞানভিত্তিক, বুদ্ধিদীপ্ত এবং উদ্ভাবনী প্রকৃতির হবে। এক কথায় বাংলাদেশের সব ক্ষেত্রেই সব কাজই হবে স্মার্ট প্রকৃতির। যেমন স্মার্ট শহর ও স্মার্ট গ্রাম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে স্মার্ট স্বাস্থ্য সেবা, স্মার্ট পরিবহন, স্মার্ট ইউটিলিটিজ, নগর প্রশাসন, জন নিরাপত্তা, কৃষি, ইন্টারনেট সংযোগ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা। অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ক্লাস এবং প্রতিটি শিক্ষার্থীকে একটি করে ল্যাপটপ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রধানমন্ত্রী।

স্মার্ট বাংলাদেশ হল একটি ধারণা যেখানে বাংলাদেশকে একটি তথ্যপ্রযুক্তি-ভিত্তিক অর্থনীতিতে রূপান্তরিত করা হবে। এটিতে উচ্চ-গতির ইন্টারনেট, উন্নত টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো এবং প্রযুক্তিগত দক্ষতা সহ একটি দক্ষ জনশক্তি অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরির সুবিধাগুলি হল:

  • এটি অর্থনৈতিক বৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে।
  • এটি জীবনযাত্রার মান উন্নত করবে।
  • এটি শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যসেবাকে উন্নত করবে।
  • এটি পরিবেশকে রক্ষা করবে।
  • এটি বাংলাদেশকে একটি আরও প্রতিযোগিতামূলক দেশ করে তুলবে।
  • পরিবহন ব্যবস্থা উন্নত হবে
  • যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হবে
  • সরকারী সেবা সহজ ও সুলভ হবে
  • অর্থনীতি উন্নত হবে
  • সামাজিক সমতা ও অন্তর্ভুক্তি বৃদ্ধি পাবে

স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরির জন্য সরকারের অবশ্যই নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি গ্রহণ করতে হবে:

  • উচ্চ-গতির ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদান করতে হবে।
  • উন্নত টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো নির্মাণ করতে হবে।
  • প্রযুক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে।
  • প্রযুক্তিভিত্তিক উদ্যোগকে উৎসাহিত করতে হবে।
  • প্রযুক্তিভিত্তিক আইনকানুন প্রণয়ন করতে হবে।

স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরির জন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতকেও অবশ্যই ভূমিকা রাখতে হবে। বেসরকারি খাতকে অবশ্যই প্রযুক্তিভিত্তিক উদ্যোগে বিনিয়োগ করতে হবে এবং প্রযুক্তিভিত্তিক কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে হবে।

স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরি করা একটি চ্যালেঞ্জ, কিন্তু এটি সম্ভব। সরকার এবং বেসরকারি খাতের যৌথ প্রচেষ্টায় আমরা স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলতে পারি।

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্য

  • প্রত্যেকের জন্য তথ্য ও যোগাযোগের প্রযুক্তি (ICT) সুবিধা নিশ্চিত করা
  • ICT ব্যবহার করে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, পরিবহন, যোগাযোগ, সরকারী সেবা ইত্যাদির মান উন্নত করা
  • ICT ব্যবহার করে অর্থনীতিকে উন্নত করা
  • ICT ব্যবহার করে পরিবেশকে রক্ষা করা
  • ICT ব্যবহার করে সামাজিক সমতা ও অন্তর্ভুক্তি বৃদ্ধি করা

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য যে পদক্ষেপগুলি নেওয়া হয়েছে

  • ICT অবকাঠামো উন্নত করা
  • ICT দক্ষতা বৃদ্ধি করা
  • ICT ব্যবহারের জন্য প্রণোদনা দেওয়া
  • ICT ব্যবহারের জন্য আইনি ও বিচারিক পরিবেশ তৈরি করা
  • ICT ব্যবহারের জন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতা জোরদার করা

প্রিয় পাঠক শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। উপরের আর্টিকেলটি পড়ে থাকলে আপনি স্মার্ট বাংলাদেশ রচনা, স্মার্ট বাংলাদেশ কি, উদ্ভাবন ও স্মার্ট বাংলাদেশ, ইস্মার্ট বাংলাদেশ অনুচ্ছেদ, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার ভিত্তি কয়টি, স্মার্ট বাংলাদেশ নিয়ে উক্তি, ইস্মার্ট বাংলাদেশ বলতে কি বুঝায়, স্মার্ট বাংলাদেশ দিবস এবং ক্যাশলেস বাংলাদেশ স্মার্ট বাংলাদেশ ইত্যাদি সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি উপরে আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়লে স্মার্ট বাংলাদেশ সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা পেয়ে যাবেন।

সর্বোপরি শেষ কথা হচ্ছে আজকের স্মার্ট বাংলাদেশ আর্টিকেলটির বিভিন্ন তথ্য গুগল থেকে এবং বিভিন্ন বই থেকে এবং ইউটিউবের সাহায্য নিয়ে লেখা হয়েছে। আজকে আর্টিকেলটি নিয়ে কোন প্রশ্ন থাকলে এমনি কমেন্ট করে জানাতে পারেন। এবং আজকে আর্টিকেল কোন প্রকার ভুল ত্রুটি হয়ে থাকলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার জন্য অনুরোধ করছি। সবার শুভ কামনা করে এখানে শেষ করছি। সাধারন জ্ঞান বিষয়ে জানতে এবং জানাতে আমাদের https://ntrcanews.com/ এই সাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

স্মার্ট বাংলাদেশ: কী কী হবে; কিভাবে হবে? | Smart Bangladesh | Budget Session

Check Also

 মেট্রোরেল সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর ২০২৩

 মেট্রোরেল সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর ২০২৩

মেট্রোরেল সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান পড়তে আসে সম্মানিত পাঠিকা বৃন্দ আশা করি আল্লাহর রহমতে ভালই আছেন। …

পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান

পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান A to Z

সাধারণ জ্ঞান বিষয়ে জানতে আসা সম্মানিত পাঠক পাটিকে বৃন্দ আশা করি সবাই ভাল আছেন। আজকে …

১৫ আগস্ট সম্পর্কে রচনা | জাতীয় শোক দিবস রচনা

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পরিচিত

১৯৭৫ সাল থেকে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস হিসাবে পালিত হয়। এই জাতীয় শোক দিবস …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *