বাংলাদেশের সংবিধান বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি কয়টি
বাংলাদেশের সংবিধান বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি কয়টি

বাংলাদেশের সংবিধান | বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি কয়টি

বাংলাদেশের সংবিধান | বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি কয়টি: বাংলাদেশের সংবিধান হলো বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন। এটি ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর গৃহীত হয় এবং ১৯৭২ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়। সংবিধানটি বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ের বিধান করে।

সংবিধানটি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন। সংবিধানের বিধানাবলীর বিরুদ্ধে কোনও আইন বা আদেশ বা বিধি কার্যকর করা যাবে না। সংবিধানের বিধানাবলীর বিরুদ্ধে কোনও ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে শাস্তি দেওয়া যাবে না। সংবিধানটি বাংলাদেশের জনগণের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষার মূল ভিত্তি। সংবিধানটি বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথ সুগম করে। বাংলাদেশের সংবিধান হলো বাংলাদেশের গণতন্ত্রের ভিত্তি। এটি আমাদের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষা করে। আমাদের উচিত সংবিধানকে সম্মান করা।

বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি কয়টি

বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি হলো বাংলাদেশের জনগণের স্বাধীনতা, সমতা, ন্যায়বিচার ও ধর্মনিরপেক্ষতা। এটি ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর গৃহীত হয় এবং ১৯৭২ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়। সংবিধানটি বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ের বিধান করে।

সংবিধানের মূলনীতিগুলি হলো:

  • স্বাধীনতা: বাংলাদেশের জনগণ স্বাধীন এবং সার্বভৌম। তারা তাদের নিজস্ব ইচ্ছা অনুসারে জীবনযাপন করতে পারবে।
  • সমতা: বাংলাদেশের সকল নাগরিকের সমতা বিধান করা হয়েছে। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ, পেশা, সম্পত্তি ইত্যাদির ভিত্তিতে কোনও বৈষম্য করা যাবে না।
  • ন্যায়বিচার: বাংলাদেশের সকল নাগরিকের ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার আছে। আইনের সামনে সকল নাগরিক সমান।
  • ধর্মনিরপেক্ষতা: বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, তবে সকল ধর্মের মানুষের সমঅধিকার আছে। ধর্মকে রাজনীতি থেকে পৃথক রাখা হয়েছে।

সংবিধানের মূলনীতিগুলি বাংলাদেশের জনগণের জীবনকে সুন্দর ও সমৃদ্ধ করে তুলতে সাহায্য করে। এগুলি বাংলাদেশের গণতন্ত্র, স্বাধীনতা ও অগ্রগতির ভিত্তি।

বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ কয়টি ও কি কি

বাংলাদেশের সংবিধানে মোট ১৫৩টি অনুচ্ছেদ রয়েছে। একটি বিস্তারিত তালিকা নিচে দেওয়া হলো:

বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ সমূহ হচ্ছে…

১. সংবিধান প্রস্তাবনা

২. সংবিধানের মূল সূচনা

৩. বাংলাদেশ একটি গণপ্রজাতন্ত্র

৪. রাষ্ট্রপতি

৫. সংসদ

৬. প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদ

৭. বাংলাদেশ সরকারের কার্যক্রম ও প্রশাসন

৮. সংসদ সভাপতি ও সংসদের কর্মবিভাগ

৯. বাংলাদেশ সরকারের প্রশাসনিক প্রক্রিয়া

১০. বিচারপতি

১১. প্রযুক্তি ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন

১২. গ্রাম ও নগর স্থান পূর্বাধার ও উন্নয়ন

১৩. স্থানীয় সরকার

১৪. নির্বাচন

১৫. মামলা বিচার পদ্ধতি

১৬. মানবাধিকার

১৭. প্রাথমিক শিক্ষা

১৮. মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা

১৯. সাময়িক প্রচার মাধ্যম

২০. ধর্ম ও সামাজিক সমস্যা

২১. সংস্কৃতি ও প্রচার বিষয়ক

২২. প্রতিষ্ঠানিক আইন

২৩. মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা পর্ষদ

২৪. বাংলাদেশ উন্নয়ন কর্পোরেশন

২৫. ন্যায়বিচার পদ্ধতি

২৬. সংবিধান সংশোধন

২৭. সরকারি কর্মচারীদের অধিকার ও দায়িত্ব

২৮. মহিলা ও শিশুদের অধিকার

২৯. প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত অনুশাসনিক বিধিমালা

৩০. সরকারি কর্মচারীদের আইনজীবী কর্মকর্তৃক দেওয়া দায়িত্ব ও কর্তব্য

৩১. গণমাধ্যম

৩২. সরকারি অধিদপ্তর ও সরকারি প্রতিষ্ঠান

৩৩. কৃষি ও খাদ্য

৩৪. বাণিজ্য ও উদ্যোগপূর্ণতা

৩৫. পর্যটন ও পর্যটন শিল্প

৩৬. মালিকানাধীন সম্পদ

৩৭. মুক্তিযুদ্ধের অধিকার

৩৮. নিয়ন্ত্রণ

৩৯. গণতন্ত্র ও নীতি

৪০. নীতিমালা নির্ধারণ

৪১. আইনজীবীদের আইনগত কর্তব্য

৪২. সরকারি নীতিসম্পর্কিত বিধিমালা

৪৩. জনগণের আদালত

৪৪. মৌলিক অধিকার

৪৫. নীতিমালা সংশোধন

৪৬. ন্যায়পরামর্শ ও ন্যায় সেবা

৪৭. আইনজীবী আইনগত কর্তব্য ও দায়িত্ব

৪৮. আইনগত কার্যপ্রণালী

৪৯. আইনজীবী আইনগত সহায়তা

৫০. ন্যায়পরামর্শ ও ন্যায় সেবায় সময়সূচী

৫১. সম্পদসংক্রান্ত বিধি

৫২. সারসংকেতিক বিধি

৫৩. সংবিধান বাতিলকরণ ও সংশোধন

৫৪. উচ্চ আদালত বাংলাদেশ অধ্যাদেশ

৫৫. বাংলাদেশ নৌবাহিনী অধিদপ্তর বিধিমালা

৫৬. সশস্ত্র বাহিনী প্রতিষ্ঠান নিয়ন্ত্রকের বিধিমালা

৫৭. জনসংখ্যা

৫৮. গ্রাম সরকার

৫৯. গ্রাম ও নগর অঞ্চল

৬০. গ্রাম ও নগর স্থান ব্যবস্থাপনা

৬১. প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত আইনগত বিধিমালা

৬২. মহাসড়ক

৬৩. মুক্তিযুদ্ধে নিহতদের দর্শন ও মুক্তিযুদ্ধে উত্তরাধিকার

৬৪. গণমাধ্যম

৬৫. সরকারি প্রক্রিয়া

৬৬. নির্বাচন আইন

৬৭. বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ

৬৮. সরকারি সংস্থা নিয়ন্ত্রকের বিধিমালা

৬৯. সরকারি সংস্থার পূর্বনির্ধারিত আয়

৭০. সরকারি বিনিয়োগ

৭১. গণমাধ্যমের জন্য হস্তক্ষেপ

৭২. বাংলাদেশ ব্যাংক

৭৩. রাজস্ব আইন

৭৪. দেশজুড়ে ব্যবসা

৭৫. ট্রেড লাইসেন্স

৭৬. প্রকৌশল বিদ্যান

৭৭. উদ্যোগপূর্ণতা

৭৮. আমনিত আইনগত সংশোধন

৭৯. সংস্কৃতি ও প্রচার বিষয়ক সংশোধন

৮০. বিচারপতি প্রদেশের সীমানা

৮১. সংবিধান অনুশাসনিক বিধিমালা

৮২. ন্যায়বিচার পদ্ধতি

৮৩. মহাপরামর্শক এবং পরামর্শ আদালত

৮৪. আইনগত প্রশাসন সম্পর্কিত বিধিমালা

৮৫. মানবাধিকার

৮৬. প্রথামিক শিক্ষা

৮৭. মাধ্যমিক শিক্ষা

৮৮. উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা

৮৯. সাময়িক প্রচার মাধ্যম বাতিলকরণ ও সংশোধন

৯০. সমাজসেবা সংক্রান্ত অনুশাসনিক বিধিমালা

৯১. মুক্তিযুদ্ধের অধিকার

৯২. অভিবাসন এবং উদ্যোগপূর্ণতা

৯৩. নগর পূর্বাধার ও উন্নয়ন

৯৪. নির্বাচন আইন

৯৫. সরকারি উদ্যোগপূর্ণতা

৯৬. রাজনীতি ও নির্বাচন

৯৭. সরকারি কর্মচারীদের অধিকার ও দায়িত্ব

৯৮. প্রকৌশল বিদ্যা ও বিজ্ঞান সংক্রান্ত অনুশাসনিক বিধিমালা

৯৯. সরকারি প্রকৌশল কর্তৃক দেওয়া দায়িত্ব ও কর্তব্য

১০০. প্রদীপ্ত উন্নয়ন কর্পোরেশন

১০১. বাংলাদেশ সরকারের নগর পূর্বাধার ও উন্নয়ন মন্ত্রণালয়

১০২. মালিকানাধীন সম্পদের বিক্রয় ও নিপটন কর

১০৩. মুক্তিযুদ্ধের অধিকার ও উত্তরাধিকার

১০৪. নিয়ন্ত্রণ

১০৫. বিচারপতি বিধিমালা সংশোধন

১০৬. মুক্তিযুদ্ধে নিহতদের দর্শন ও মুক্তিযুদ্ধে উত্তরাধিকার সংশোধন

১০৭. মহানগর ও অন্যান্য নগর পূর্বাধার ও উন্নয়ন

১০৮. কারখানা এবং শ্রম বিধিমালা

১০৯. স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সংক্রান্ত অনুশাসনিক বিধিমালা

১১০. শিশুদের অধিকার

১১১. প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত অনুশাসনিক বিধিমালা

১১২. স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা সংক্রান্ত বিধিমালা

১১৩. প্রাথমিক শিক্ষা সংক্রান্ত বিধিমালা

১১৪. মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদ বিধিমালা

১১৫. সাময়িক প্রচার মাধ্যম সংক্রান্ত বিধিমালা

১১৬. মানবাধিকার সংশোধন

১১৭. পর্যটন ও পর্যটন শিল্প সংক্রান্ত বিধিমালা

১১৮. সারসংকেতিক বিধি সংশোধন

১১৯. মালিকানাধীন সম্পদের বিক্রয় ও নিপটন কর সংশোধন

১২০. বাংলাদেশ সরকারের নগর পূর্বাধার ও উন্নয়ন মন্ত্রণালয় সংশোধন

১২১. মালিকানাধীন সম্পদের অধিলিখিত এবং দায়িত্ব সংশোধন

১২২. কারখানা এবং শ্রম বিধি সংশোধন

১২৩. স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সংশোধন

১২৪. প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত অনুশাসনিক বিধিমালা সংশোধন

১২৫. প্রাথমিক শিক্ষা সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

১২৬. মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদ বিধিমালা সংশোধন

১২৭. সাময়িক প্রচার মাধ্যম সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

১২৮. মানবাধিকার সংশোধন

১২৯. পর্যটন ও পর্যটন শিল্প সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

১৩০. সারসংকেতিক বিধি সংশোধন

১৩১. মালিকানাধীন সম্পদের বিক্রয় ও নিপটন কর সংশোধন

১৩২. বাংলাদেশ সরকারের নগর পূর্বাধার ও উন্নয়ন মন্ত্রণালয় সংশোধন

১৩৩. মালিকানাধীন সম্পদের অধিলিখিত এবং দায়িত্ব সংশোধন

১৩৪. কারখানা এবং শ্রম বিধি সংশোধন।

১৩৫. স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সংশোধন

১৩৬. প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত অনুশাসনিক বিধিমালা সংশোধন

১৩৭. প্রাথমিক শিক্ষা সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

১৩৮. মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদ বিধিমালা সংশোধন

১৩৯. সাময়িক প্রচার মাধ্যম সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

১৪০. মানবাধিকার সংশোধন

১৪১. পর্যটন ও পর্যটন শিল্প সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

১৪২. সারসংকেতিক বিধি সংশোধন

১৪৩. মালিকানাধীন সম্পদের বিক্রয় ও নিপটন কর সংশোধন

১৪৪. বাংলাদেশ সরকারের নগর পূর্বাধার ও উন্নয়ন মন্ত্রণালয় সংশোধন

১৪৫. মালিকানাধীন সম্পদের অধিলিখিত এবং দায়িত্ব সংশোধন

১৪৬. কারখানা এবং শ্রম বিধি সংশোধন

১৪৭. স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সংশোধন

১৪৮. প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত অনুশাসনিক বিধিমালা সংশোধন

১৪৯. প্রাথমিক শিক্ষা সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

১৫০. মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদ বিধিমালা সংশোধন

১৫১. সাময়িক প্রচার মাধ্যম সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

১৫২. মানবাধিকার সংশোধন

১৫৩. পর্যটন ও পর্যটন শিল্প সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন

এটি সংক্ষেপে বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ সম্পর্কিত বিস্তারিত তালিকা। এই অনুচ্ছেদগুলি বাংলাদেশের সংবিধানের মূল অংশ গুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে এবং এটি দেশের পরিবর্তনশীল একটি নিয়মাবলী।

বাংলাদেশের সংবিধান বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি কয়টি
বাংলাদেশের সংবিধান বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি কয়টি

বাংলাদেশ সংবিধান থেকে সাধারন জ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর

সম্মানিত শিক্ষার্থী বন্ধুরা আশা করি আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন। এবং আশা করি উপরের আলোচনা পড়ছেন। এখন আমরা বাংলাদেশ সংবিধান থেকে সাধারন জ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে সামান্য আলোচনা করব।

১। বাংলাদেশের সাংবিধানিক নাম কি ?

উত্তরঃ বাংলাদেশের সাংবিধানিক নাম “গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান”। এটি ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা লাভ করে এবং ১৯৭২ সালের ১৬ই ডিসেম্বর সংবিধান গৃহীত হয়। সংবিধানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ের বিধান করা হয়েছে।

২। বাংলাদেশের সংবিধানের নাম কি ?

উত্তরঃ বাংলাদেশের সংবিধানের নাম হলো “গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান”। এটি ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর গৃহীত হয় এবং ১৯৭২ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়। সংবিধানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ের বিধান করা হয়েছে।

৩। বাংলাদেশের সংবিধান কি ?

উত্তরঃ বাংলাদেশের সংবিধান হলো বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন। এটি ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর গৃহীত হয় এবং ১৯৭২ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়। সংবিধানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ের বিধান করা হয়েছে।

বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি হলো:

  • স্বাধীনতা
  • সমতা
  • ন্যায়বিচার
  • ধর্মনিরপেক্ষতা
  • গণতন্ত্র
  • বাকস্বাধীনতা
  • ধর্মীয় স্বাধীনতা
  • শিক্ষার স্বাধীনতা
  • চিকিৎসার স্বাধীনতা
  • সংস্কৃতির স্বাধীনতা
  • পরিবেশের স্বাধীনতা
  • প্রতিরক্ষার স্বাধীনতা

বাংলাদেশের সংবিধান একটি গণতান্ত্রিক, সংসদীয় ব্যবস্থার সংবিধান। এটি বাংলাদেশের জনগণের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষা করে। এটি বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথ সুগম করে।

৪। বাংলাদেশের সংবিধানের ইংরেজি নাম কি ?

উত্তরঃ বাংলাদেশের সংবিধানের ইংরেজি নাম হলো “The Constitution of the People’s Republic of Bangladesh”। এটি ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর গৃহীত হয় এবং ১৯৭২ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়। সংবিধানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ের বিধান করা হয়েছে।

৫। বাংলাদেশের সংবিধান কত তারিখে কার্যকর হয় ?

উত্তরঃ বাংলাদেশের সংবিধান ১৯৭২ সালের ৪ই নভেম্বর তারিখে কার্যকর হয়। বাংলাদেশের সংবিধান ১৯৭২ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়। এটি ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর গৃহীত হয়েছিল। সংবিধানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ের বিধান করা হয়েছে।

৬। বাংলাদেশের সংবিধান কতবার সংশোধন করা হয়েছে ?

উত্তরঃ বাংলাদেশের সংবিধানটি মোট ১৭ বার সংশোধন করা হয়েছে। প্রথম সংশোধনটি ১৯৭৩ সালে করা হয়েছিল এবং সর্বশেষ সংশোধনটি ২০১৮ সালে করা হয়েছিল। সংশোধনগুলির মাধ্যমে সংবিধানের বিভিন্ন বিষয়ে পরিবর্তন আনা হয়েছে, যেমন- রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা, প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতা, সংসদের ক্ষমতা, বিচার বিভাগের ক্ষমতা, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি।

৭। বাংলাদেশের সংবিধানের বৈশিষ্ট্য কয়টি ?

উত্তরঃ বাংলাদেশের সংবিধানের বৈশিষ্ট্যগুলি হলো:

  • এটি একটি গণতান্ত্রিক, সংসদীয় ব্যবস্থার সংবিধান।
  • এটি একটি ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধান।
  • এটি একটি সামাজিক রাষ্ট্রের সংবিধান।
  • এটি একটি প্রগতিশীল সংবিধান।
  • এটি একটি সার্বভৌম সংবিধান।
  • এটি একটি অবিচ্ছেদ্য সংবিধান।
  • এটি একটি ব্যাপক সংবিধান।
  • এটি একটি জীবন্ত সংবিধান।
  • এটি একটি পরিবর্তনশীল সংবিধান।

বাংলাদেশের সংবিধানের বৈশিষ্ট্যগুলি এটিকে একটি অনন্য সংবিধান করে তুলেছে। এটি বাংলাদেশের জনগণের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষা করে এবং বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথ সুগম করে।

৮। বাংলাদেশের সংবিধান দিবস কবে ?

উত্তরঃ বাংলাদেশের সংবিধান দিবস প্রতিবছর ১৬ ডিসেম্বর পালিত হয়। ১৯৭২ সালের এই দিনে বাংলাদেশের সংবিধান গৃহীত হয়েছিল। বাংলাদেশের সংবিধান হলো বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন। এটি বাংলাদেশের জনগণের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষা করে। বাংলাদেশের সংবিধান দিবসটি বাংলাদেশের একটি জাতীয় দিবস।

৯। বাংলাদেশের সংবিধান কয়টি ভাষায় রচিত

উত্তরঃ বাংলাদেশের সংবিধান বাংলা ও ইংরেজি দুটি ভাষায় রচিত। এটি ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর গৃহীত হয়েছিল। সংবিধানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ের বিধান করা হয়েছে।

১০। বাংলাদেশের সংবিধানের রচয়িতা কে ?

উত্তরঃ 

বাংলাদেশের সংবিধানের রচয়িতা হলেন ড. কামাল হোসেন। তিনি ছিলেন বাংলাদেশের একজন বিশিষ্ট আইনজীবী, রাজনীতিবিদ এবং মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। তিনি ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের সংবিধান রচনার জন্য গঠিত খসড়া সংবিধান কমিটির সভাপতি ছিলেন। তিনি বাংলাদেশের সংবিধানের মূলনীতি, সরকারের গঠন, ক্ষমতা বিভাজন, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি, পরিবেশ, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। তিনি বাংলাদেশের সংবিধানকে একটি গণতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ, সামাজিক রাষ্ট্রের সংবিধান হিসেবে রূপদান করেছেন।

সম্মানিত পাঠক পাঠিকা, উপরে আমরা একটি পোষ্টের মাধ্যমে বাংলাদেশ সংবিধান সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা দেয়ার চেষ্টা করছি। আশা করি আজকের আর্টিকেল্টি সকল জব পরীক্ষার জন্য অনেক হেল্পফুল থাকবে। তবে আজকের আর্টিকেল এর কোন বিষয় খারাপ লাগ্লে কমেন্ট করে জানাতে পারো। ধন্যবাদ সবাইকে।

Read More

Check Also

Tense কত প্রকার ও কি কি | ইংরেজি টেন্স শেখার সহজ উপায়

Tense কত প্রকার ও কি কি | ইংরেজি টেন্স শেখার সহজ উপায়

সম্মানিত পাঠক আশা করি ভালো আছেন। আজকে আমারা Tense কত প্রকার ও কি কি | …

১৫ আগস্ট সম্পর্কে রচনা | জাতীয় শোক দিবস রচনা

১৫ আগস্ট সম্পর্কে রচনা | জাতীয় শোক দিবস রচনা

১৫ আগস্ট সম্পর্কে রচনা এবং জাতীয় শোক দিবস রচনা সম্পর্কে আলোচনা করতে যাচ্ছি। প্রিয় শিক্ষার্থী …

Saptahik Chakrir Dak সাপ্তাহিক চাকরির ডাক পত্রিকা

Chakrir Dak Saptahik 18 August Friday | আজকের চাকরির ডাক সাপ্তাহিক পত্রিকা

Chakrir Dak Saptahik 18 August Friday | আজকের চাকরির ডাক সাপ্তাহিক পত্রিকাঃ এখানে আপনি সাপ্তাহিক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *